মজার ছেলেবেলা

ছেলেবেলার দিনগুলোকে
যায় কি কভু ভোলা!
আলতো স্নেহের পরস মেখে
দুলকি তালে চলা।

ইচ্ছে হলেই উড়িয়ে দিতাম
পরীর মত ডানা,
উড়ে যেতাম যেথা খুশি
করতো না কেউ মানা।

বাবলা গাছের বনের ধারে
ফুল কুড়াতে যেতাম
সারা গাঁয়ে জড়িয়ে নিয়ে
মায়ের গালি খেতাম।

সাথীসনে কিনে নিতাম
পাঁচ পয়সার তেঁতুল,
তার চেয়েও লাগতো ভাল
বেত গাছের ঐ বেথুল।

ধুলো,বালির কোরমা পোলাও
সাজিয়ে নিতাম ঘরে,
মুচকি হেসে বলতো বাবা
লাগলো কেমন ওরে?

কলাপাতার ছাউনি দেয়া
ঘর বানিয়ে নিয়ে,
কতই খুশি হতাম সেদিন
পুতুল বিয়ে দিয়ে।

ছেলেবেলার সেদিন গুলো
স্মৃতির ফ্রেমে আঁকা,
চাইলে শত বারেও সে সব
যায়না ধরে রাখা।

কবি মনোয়ারা বেগম

সকল পোস্ট : মনোয়ারা বেগম

১৪ thoughts on “মজার ছেলেবেলা

  1. !ছেলেবেলার সেদিন গুলো
    স্মৃতির ফ্রেমে আঁকা,
    চাইলে শত বারেও সে সব
    যায়না ধরে রাখা।”— পুরোনো দিনে নিয়ে গেলেন। বেশ সুন্দর করে ছন্দে লিখেছেন। শুভ কামনা সতত।

  2. ছেলেবেলা সৃতির ফ্রেমে এঁকে রেখে
    ছন্দফ্রেমে ছোট্টবেলায় গেলেন ফিরে,
    সবাই এখন যায় ফিরে গ্রাম্যগন্ধে
    ছেলেবেলায় বালিকাঁদা মেখে
    মায়ের বকা খাওয়া নিত্যনতুন ছন্ধে।

মন্তব্য করুন