বিধি নেই বিধানে

‘আজি’ যখন ‘আজই’ হল
‘রাজি’ হবে কী?
‘বৌ’ যখন ‘বউ’ হল
পাজি হল ঘি!

‘সবই’ যখন ‘সবি’ হয়
আমি ‘হইচই’
‘কৈ’ যখন ‘কই’ হয়
তুমি হলে সই!

‘আরও’ হলে ‘আরো’ হয়
‘বার’ ‘তের’ ‘সতের’
‘সবে’ যদি ঠিক থাকে
ঠিক থাকুক ‘আঠার’।

‘কখনো’ হতে পারে ‘কখনও’
‘এমনি’ হয় ‘এমনই’?
‘সবই’ যদি খাঁটি হয়
ভাষায় পাই ‘থই’।

‘মনুষ্য’ যদি ‘মানুষ’ হয়
শিক্ষা লাভের গুণে!
পাখি কেন শিক্ষা পেয়ে
তবু ধায় বনে?

‘পুণ্যলাভে’ যদি হয় ‘ফলশ্রুতি’
কী পরিণাম কর্ণের?
‘সহসা’ হয়ে যায় ‘আশুগতি’
‘অত্র’ এ ‘নীতিবান’ বর্ণের!

‘সঠিক’ ‘সুপ্রিয়’ ‘পাশবিক’ ‘তবুও’
পদেপদে বাঁধা
একটু পেলে আরেকটু চায়
কেউ নেই আধা-আধা।

মানুষেতে হচ্ছে যখন পশুরূপ
বলার ভাষা আছে কি?
অনেক পশুতে মানুষের আচরণ
তবু ‘পশু’ বলে ডাকি!

এভাবে গোলযোগে অনেকানেক
ক্ষীণাত্মা করে আসন
মহাত্মার সিংহাসনে বসে হায়
করছে রাজ্য শাসন!
২ বৈশাখ, ১৪০৯ কাঞ্চন নগর, চট্টগ্রাম

কবি আযাহা সুলতান

সকল পোস্ট : আযাহা সুলতান

৫ thoughts on “বিধি নেই বিধানে

মন্তব্য করুন